সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১১ আশ্বিন ১৪২৯

আ. লীগের নতুন নেতৃত্বের লড়াই ঢাকা-৫ আসনে

ঢাকা-৫ (ডেমরা, যাত্রাবাড়ী ও আংশিক কদমতলী) আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান মোল্লার মৃত্যুতে আসনটি শুন্য ঘোষণা করেছেন সংসদ সচিবালয়। ফলে এই আসনটিতে উপনির্বাচনকে সামনে রেখে ফেসবুকের মাধ্যমে প্রচার প্রচারণা চালাচ্ছেন অনেক মনোনয়ন প্রত্যাশী প্রার্থীরা।

মহামারি করোনার কারণে প্রার্থীর প্রকাশ্যে মাঠে না থাকলেও প্রার্থীদের নিয়ে তাদের সমর্থকরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জোরে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। করোনার প্রাদুর্ভাব কমলেই মাঠ সরগরম হতে দেখা যাবে প্রার্থীদের পদচারণায় এমনটাই গুঞ্জন চলছে নির্বাচনী এলাকাজুড়ে। প্রয়াত সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান মোল্লার পর এবার আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে কে আসছেন এটাই দেখার বিষয়।

আওয়ামী লীগ থেকে প্রার্থী হিসেবে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন, (এশিয়ান গ্রুপ) এশিয়ান টেলিভিশনের চেয়ারম্যান ও বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের জাতীয় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব, এফবিসিসিআইয়ের সাবেক পরিচালক হারুন অর রশিদ (সিআইপি), আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ও শহীদ শেখ কামালের স্ত্রী শহীদ সুলতানা কামালের ভাতিজি মেহরীন মোস্তফা দিশি, যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা কাজী মনিরুর ইসলাম মনু আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ মুন্না, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি কামরুল হাসান রিপন, ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর আতিকুর রহমান আতিক, সদ্য প্রয়াত সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান মোল্লার বড় ছেলে ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান মোল্লা স্বজল, ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম খাঁন মাসুদ, ও মহাজোট সরকারের শরীক দল জাতীয় পাটির প্রেসিডিয়াম সদস্য মীর আব্দুস সবুর আসুদ।

আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা সবাই মনোনয়ন পেতে যে যার মতো করোনায় বেকার হয়ে যাওয়া মানুষের মধ্যে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ ফেসবুকে প্রচার প্রচারণা চালাচ্ছেন। নেতা-কর্মীরাও তাদের পছন্দের প্রার্থীদের নিয়ে ফেসবুকে বিভিন্ন রকম স্ট্যাটাস দিচ্ছেন। এর দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা যাকে মনোনয়ন দিবেন তার পক্ষেই ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার প্রতিজ্ঞাবদ্ধ তারা।

এশিয়ান গ্রুপ ও এশিয়ান টেলিভিশনের চেয়ারম্যান ও বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের জাতীয় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব, এফবিসিসিআইয়ের সাবেক পরিচালক হারুন অর রশিদ (সিআইপি) গত সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। 

এলাকার অসহায় গরিব সম্বলহীন মানুষের সেবায় নিয়োজিত করে নিজেকে তাদের কাছে অত্যন্ত আপনজন হিসেবে পরিচিতি লাভ করে তাদের মন জয় করে নিয়েছেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে লালন করে ঊনসত্তরের গণঅভ্যুথান সত্তরের নির্বাচন এবং একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। হারুন অর রশীদ জানান, সাধারণ মানুষের সেবায় নিজেকে উৎসর্গ করতে চাই। আশা করি প্রধানমন্ত্রী আমাকে মূল্যায়ন করে অবশ্যই মনোনয়ন দেবেন।

মহাজোট থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন জাতীয় পাটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জাতীয় যুব সংহতির সাবেক সভাপতি আব্দুস সবুর আসুদ। তিনি জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে জাতীয় পার্টির রাজনীতিতে জড়িত। রাজনীতি করতে গিয়ে হামলা মামলার স্বীকার হয়েছেন অসংখ্য বার। তিনি ডেমরা মাতুয়াইল ঐতিহ্যবাহী মীর পরিবারের প্রকৌশলী মীর আব্দুর রাজ্জাক মিয়ার কনিষ্ঠ ছেলে।এলাকার সামাজিক, ধর্মীয় শিক্ষা খাতে রয়েছে তার ব্যাপক উন্নয়ন। এছাড়া সৎ শিক্ষিত ক্লিনম্যান হিসেবে রয়েছে তার ব্যাপক সুনাম। তিনি ২০০৮ ও ২০১৪ সালে জাতীয় পার্টি থেকে মনোনয়ন চেয়েছিলেন। এবার উপ-নির্বাচনে তিনি মনোনয়ন পাবেন বলে প্রত্যাশা করেন।

মীর আব্দুস সবুর আসুদ বলেন, আমি দীর্ঘদিন যাবৎ জাতীয় পার্টির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত আশা করি এই আসনটি মহাজোটকে ছেড়ে দেবে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের পুত্রবধূ সুলতানা কামালের ভাতিজি মেহরীন মোস্তফা দিশি এই আসন থেকে একমাত্র নারী প্রার্থী। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ তরুণ, সৎ, শিক্ষিত ও ক্লিন ইমেজের প্রার্থীদের বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন। সেই ক্ষেত্রে আমি মনোনয়নের বিষয়ে আশাবাদী।

প্রবীন আওয়ামী লীগ নেতা যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক হারুন হারুনুর রশীদ মুন্না বলেন, রাজনীতি করতে গিয়ে অসংখ্যবার জেলে যেতে হয়েছে। হরতাল সফল করতে গিয়ে ফ্রিডম পার্টির ক্যাডাররা আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা চালায়। সেই সময়ে দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে দেখতে হাসপাতালে যান। দলীয় কর্মকাণ্ড আমার অবদানের জন্য দল আমাকে মনোনয়ন দিবে বলে আশা করি।

ছাত্রলীগের সাবেক তুঁখোর ছাত্রলীগ নেতা ও ঢাকা মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি কামরুল হাসান রিপন রাজনীতিতে রয়েছে ক্লিন ইমেজ। কারুল হাসান রিপন জানান, দলের দুঃসময়ে বিভিন্ন সময়ে নেত্রীর নির্দেশে আন্দোলন সংগ্রাম করতে গিয়ে একাধিক মামলার আসামি হয়ে জেলে যেতে হয়েছে। নেত্রীর তরুণ নেতৃত্বের পছন্দের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নের বিষয়ে আমি আশাবাদী।

ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৭০নং ওয়ার্ডের দুই বার নির্বাচিত কাউন্সিলর আতিকুর রহমান আতিক, তার বাবা আবুল গফুর এলাকায় একজন সমাজ সেবক ও দানবীর হিসেবে পরিচিত ছিলেন। সেই সুবাধে তিনি স্কুল, কলেজ, মসজিদ মাদরাসা, রাস্তা ঘাটসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে তার রয়েছে অনেক অবদান। এছাড়া ডেমরা এলাকায় একক প্রার্থী হওয়ায় বেশ ভাল অবস্থানে রয়েছেন তিনি। 

আতিকুর রহমান আতিক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এলাকায় ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজ করেছি, দলীয়ভাবে মনোনয়ন পেলে এলাকার ব্যাপক উন্নয়নসহ ঢাকা-৫ আসনকে মডেল হিসেবে গড়ে তোলা হবে।

যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী মনিরুল ইসলাম মনু গত সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের অন্যতম প্রার্থী ছিলেন। ১৯৬৯ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের নামে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা প্রত্যাহারের আন্দোলনের মাধ্যমে তার আওয়ামী লীগের রাজনীতি শুরু হয়। দলের জন্য রয়েছে তার অনেক অবদান। মনিরুর ইসলাম মনু বলেন, আমার দলীয় কর্মকান্ড ও ভূমিকা মূল্যায়ন করে গত নির্বাচনে মনোনয়ন বোর্ডে আমার নাম ছিল। এ বছর নেত্রী অবশ্যই আমাকে মনোনয়ন দেবেন বলে আমি আশাবাদী।

ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম খান মাসুদ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। এবারও তিনি মনোনয়ন চাইবেন। এলাকায় রাজনীতিতে রয়েছে তার বেশ সুনাম।

অন্যদিকে সদ্য প্রয়াত জনপ্রিয় সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান মোল্লার ছেলে ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান মোল্লা স্বজল নির্বাচনে প্রর্থী হবেন এবং তাকেই মনোনয়ন দেবে দলীয় ভাবে এমন প্রত্যাশাও রয়েছে ঢাকা-৫ এর জনগণের মাঝে। বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে মশিউর রহমান মোল্লা স্বজল বলেন, আমার বাবা দীর্ঘদিন আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন এবং চার চার বার নির্বাচিত হয়েছেন। আমি মনোনয়ন পেলে বাবার অসামাপ্ত কাজকে সমাপ্ত করব ইনশাল্লাহ।