বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে ৩০ দিন সময় দিলেন ট্রাম্প

আগামী এক মাসের মধ্যে কোনো উন্নতি করতে না পারলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তহবিল স্থায়ীভাবে বন্ধ করা হবে বলে হুমকি দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সংস্থাটির প্রধানের কাছে পাঠানো এক চিঠিতে তিনি বলেন, ৩০ দিনের মধ্যে কোনো বাস্তব উন্নতি না হলে সদস্যপদও পুনর্বিবেচনা করা হবে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে এমন তথ্য জানা গেছে। গত মাসে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থায়(ডব্লিউএইচও) মার্কিন তহবিল স্থগিত রাখার ঘোষণা দেন ট্রাম্প। তখন নতুন করোনাভাইরাস মহামারী নিয়ে সংস্থাটির বিরুদ্ধে চীনের বিভ্রান্তিকর তথ্যকে প্রচারেরও অভিযোগ করেন তিনি।

যদিও ডব্লিউএইচও সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছে। চীন বলছে, তারা স্বচ্ছ ও উন্মুক্ত।

টুইটারে সর্বশেষ পোস্টে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক টেড্রোস আধানম গেবরিয়াসুসকে উদ্দেশ্য করে ট্রাম্প বলেন, আগামী ৩০ দিনের মধ্যে সংস্থাটি যদি বড় ধরনের বাস্তবভিত্তিক উন্নতি না করতে পারে, তবে আমি তাদেরকে দেয়া যুক্তরাষ্ট্রের যে তহবিল সাময়িকভাবে স্থগিত করেছি, সেটা স্থায়ী করে ফেলব এবং ডব্লিউএইচও’র সদস্যপদও পুনর্বিবেচনা করবো।

এর আগে ট্রাম্প বলেন, করোনাভাইরাস মোকাবেলায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা খুবই দুঃখজনক কাজ করেছে। শিগগিরই সংস্থাটিকে দেয়া তহবিল নিয়ে একটি সিদ্ধান্ত নেবেন।

চিঠিতে ট্রাম্প বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জন্য মার্কিন তহবিল অনুমোদনের একমাত্র উপায় হচ্ছে চীন থেকে স্বাধীন হওয়া। ট্রেড্রোসের সঙ্গে তার প্রশাসন সংস্কার আলোচনাও শুরু করেছে বলে জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

এছাড়াও চীনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ তোলেন ট্রাম্প। যার মধ্যে রয়েছে, মানুষের মধ্যে ভাইরাসটির সংক্রমণের প্রমাণ চীন আটকে দিতে চেয়েছে। এটাকে জরুরি অবস্থা ঘোষণা না দিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে চাপ দিয়েছে। উপাত্ত ও নমুনা শেয়ার করতে এবং এটির বিজ্ঞানী ও স্থাপনাগুলো থেকে তথ্য দিতে অস্বীকার করেছে।

এসব অভিযোগকে মিথ্যা বলে দাবি করেছেন চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিন।