শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১৫ আশ্বিন ১৪২৯

ভাষা সৈনিক খন্দকার জানে আলম মোহাম্মদের দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত।

ভাষা সৈনিক খন্দকার জানে আলম মোহাম্মদের দোয়া মাহফিল আজ বাদ জুমা নিজ গ্রাম সারাংপুরের হাজী জান মোহাম্মদ জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও নাগরপুর উপজেলা পরিষদ জামে মসজিদ, সদর বাজার জামে মসজিদ এবং সহবতপুর, চৌধুরী ডাঙ্গ, বাটরা, কোকাদাইর, ভাড়রা, ধুবুড়িয়া ও সারাংপুরের বিভিন্ন মসজিদে জুমার নামাজের পর মরহুমের বিদেহী আত্মার শান্তি ও মাগফেরাত কামনা করে ফাতিহা পাঠ ও দোয়া করা হয়।

খন্দকার জান আলম মোহাম্মদ মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক বিশিষ্ট ন্যাপ নেতা সৈয়দ আনোয়ার আলী চৌধুরী নেতৃত্বে সক্রিয়ভাবে ভাষা আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন। খন্দকার জানে আলম মোহাম্মদের নেতৃত্বে তৎকালিন মন্ত্রী লতিফ বিশ্বাসের বাড়ির সামনে মানিকগঞ্জের প্রথম শহীদ মিনার নির্মিত হয়। আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে খন্দকার জানে আলম মোহাম্মদ ১৯৫৬ মানিকগঞ্জ দেবেন্দ্র কলেজের ছাত্র সংসদের প্রথম জিএস নির্বাচিত হন।

৮৩ বছরের বর্নাঢ্য জীবনে বহুমুখী প্রতিভা ও অগাধ জ্ঞানের অধিকারী প্রগতিশীল আন্দোলের নিবেদিত প্রাণ খন্দকার জানে আলম মোহাম্মদ ছিলেন ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র – টিইউসি’র অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদকসহ টিইউসি’র বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। পিডিবির সবেক কর্মকর্তা, বিচারপতি দেবেশ ভট্টাচার্যের শিক্ষানবিশ আজীবন সংগ্রামী খন্দকার জানে আলম মোহাম্মদ ৫০’এর দশকে সাংবাদিকতা করেছেন দৈনিক আজাদ ও দৈনিক সংবাদে। সাংবাদিকতা পেশায় ঘনিষ্ঠ ছিলেন সমসাময়িক কেজি মোস্তফা ও কামাল লোহানীদের মতো বিশিষ্টজনদের সঙ্গে। খন্দকার জানে আলম মোহাম্মদ পাকিস্তানের স্বৈরাচার বিরোধী গণতান্ত্রিক আন্দোলন, স্বাধীনতার আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রেখেছেন।

পাশাপাশি তিনি জড়িত ছিলেন সামাজিক কর্মকাণ্ডে সঙ্গে। স্বধীনতা উত্তর দেশগঠনে, স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন, গণতান্ত্রিক ও শ্রমিকের অধিকার আদায়ের সকল আন্দোলনের সম্মুখ ভুমিকায় ছিলেন খন্দকার জানে আলম মোহাম্মদ। আন্তর্জাতিক শ্রমিক আন্দোলনে কাজে সফর করেছেন সোভিয়েত ইউনিয়ন (বর্তমান রাশিয়া), জার্মান ডেমোক্রেটিক রিপাবলিক, ভারত, নেপাল, ভুটান, ফিলিপাইন, মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়া। ৫ জুন ২০২০, শুক্রবার ভোরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় চিরসংগ্রামী খন্দকার জানে আলম মোহাম্মদ ঢাকায় একটি হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। ঐ দিন বাদ জুম্মা ঢাকা তিলপাপাড়া মসজিদে ও বাদ আসর সারাংপুরে জানাজা শেষে গ্রামের কবরস্থানে তাঁকে সমাহিত করা হয়। টাঙ্গাইল জেলা সাংবাদিক ফোরামের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও নাগরপুর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের উপদেষ্টা খন্দকার আছাব মাহমুদ উনার বড় ছেলে।